মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ১০:০৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
মারামরি মামলায় ভালুকা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কারাগারে  চারজনকে কুপিয়ে জখম: আসামীদের গ্রেফতারের দাবীতে ত্রিশালে সংবাদ সম্মেলন ভালুকায় স্থানীয় মিল কারখায় ৫০% চাকুরী কোঠার দাবীতে মানববন্ধন ভালুকায় প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবিতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ ভালুকায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল ভালুকায় বকেয়া বেতনের দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ ভালুকায় শহীদ দবিস পালিত ভালুকায় শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রস্তুতি মূলক সভা অনুষ্ঠিত ভালুকায় বনবিভাগের অবৈধ করাতকল উচ্ছেদ মালামাল জব্দ এবছর বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছে কবি ও ঔপন্যাসিক এরশাদ আহমেদ এর রোমান্টিক উপন্যাস “মনপ্রিয়া”

মঠবাড়িয়ায় যুবককে হত্যার অভিযোগে নারীসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১, ১০.৫০ এএম
  • ১৯০ বার পাঠিত

শাকিল আহমেদ পিরোজপুর প্রতিনিধি : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ইমরান গাজী (২৬) নামে ইলেকট্রনিক মিস্ত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার ঘটনার ৭ দিন পর সোমবার আদালতে মামলা হয়েছে। নিহত ওই যুবকের ভাই আব্দুল্লাহ গাজী পরিকল্পিত ভাবে হত্যার আভিযোগে এনে স্থানীয় চা দোকানী ফাতিমা বেগম (৩৫) কে প্রধান আসামী করে ৫ জন নামীয় ও অজ্ঞাত ৭ জনের বিরুদ্ধে মঠবাড়িয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যজিস্ট্রেট আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পিরোজপুর ‘পিবিআই’ কে তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের আদেশ দেন। ইমরান গাজী পৌর শহরের সবুজ নগর গ্রামের মৃত মন্নান গাজীর ছেলে।

মামলা ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, নিহত ইমরান গাজী সবুজ নগর গ্রামে আউয়াল শরীফ এর নির্মাণাধীন ভবনে ইলেক্ট্রিক কাজ করতো। ওই ভবন সংলগś ফাতিমা বেগমের দোকানে চা-নাস্তা করার সুবাদে ফাতিমা বেগমের সাথে ইমরান গাজীর সুসম্পর্ক গড়ে ওঠে। এদিকে বিদ্যুতের লাইনের কাজ দ্রæত করার জন্য কেয়ারটেকর ইলিয়াসের সাথে ইমরান গাজীর বিরোধ হয়। কেয়ারটেকর ইলিয়াস ইমরান গাজীকে ঘায়েল করার জন্য ফাতিমা বেগমের ছেলে হাসানকে তার মা এবং ইমরান গাজী সম্পর্কে অপত্তিকর কথা বলেন। এতে সকলে ইমরানকে হত্যার পরিকল্পনা করে গত ১১ অক্টোবর চা ও জুসের সাথে চেতনা নাশক দ্রব্য মিশিয়ে ইমরানকে খেতে দেয়। পরে ইমরান গাজীকে নির্মম ভাবে হত্যা করে নির্মাণাধীন ওই ভবনের তৃতীয় তলায় একটি কক্ষে ফ্যান লাগানোর রডের সাথে ঝুলিয়ে রাখে। পুলিশ ওই দিন নিহত ইমরান গাজীর লাশ উদ্ধার করে পিরোজপুর জেলা মর্গে পাঠায়। পুলিশ এ ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে ১১ জনকে আটক করলেও ফাতিমা বেগম ছাড়া বাকিদের ছেড়ে দেয়। ফাতিমা বেগম সবুজ নগর গ্রামের হারুন অর রশিদের স্ত্রী। নিহত ওই যুবকের ভাই আব্দুল্লাহ গাজী মামলায় আরও উল্লেখ করেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নেয়নি এমনকি তার নিহত ভাইয়ের শরীরের আঘাত গুলো তাদেরকে না দেখিয়ে লাশ দ্রæত মর্গে পাঠিয়ে দিয়েছে। মঠবাড়িয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যজিস্ট্রেট আদালতের আইনজীবী এডভোকেট নাসরিন জাহান বলেন, থানায় মামলা না নেয়ায় নিহতের ভাই আব্দুল্লাহ গাজী ৫ জন নামীয় ও অজ্ঞাত ৭ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছেন। বিজ্ঞ আদালত মামলটি আমলে নিয়ে ‘পিবিআই’ কে তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের আদেশ দেন।

দয়াকরে নিউজটি শেয়ার করুন

আরো পড়ুন.....

greenaronno.com

themes052459
© All rights reserved © 2018 মুক্তকণ্ঠ
Theme Download From Bangla Webs