বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:২৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ভালুকায় প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবিতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ ভালুকায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল ভালুকায় বকেয়া বেতনের দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ ভালুকায় শহীদ দবিস পালিত ভালুকায় শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রস্তুতি মূলক সভা অনুষ্ঠিত ভালুকায় বনবিভাগের অবৈধ করাতকল উচ্ছেদ মালামাল জব্দ এবছর বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছে কবি ও ঔপন্যাসিক এরশাদ আহমেদ এর রোমান্টিক উপন্যাস “মনপ্রিয়া” ভালুকায় সুতার গোডাউনে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড ভালুকায় ৬ অটোরিকশাসহ চোরচক্রের ৪ সদস্য আটক ভালুকায় মাইক্রোবাস খাদে প্রান গেলো পুলিশ কর্মকর্তার

শিক্ষকদের বেতন ইফএফটি করতে শিক্ষা কর্মকর্তার ঘুষ বানিজ্য, তদন্ত শুরু

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২১, ১২.৩২ পিএম
  • ২৮৫ বার পাঠিত

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার ২৩৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন ইএফটি করতে পৌনে তিন লাখ টাকা ঘুষ আদায়ের অভিযোগ উঠেছে শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) সালমা আক্তারের বিরুদ্ধে। এছড়াও বিদ্যালয় উন্নয়নের বরাদ্দ থেকে অন্তত ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এসব বিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। শিক্ষকদের সাথে কথা বলে ঘুষ নেয়ার বিষয়টির সত্যতাও মিলেছে।এসব বিষয়ে ডিজি অফিসের অভিযোগ বিষয়ক তদন্তের দায়িত্বে থাকা শিক্ষা কর্মকর্তা তাপস কুমার সরকার (অর্থ) বলেন, উনার বিষয়ে তদন্ত হচ্ছে। তদন্ত প্রতিবেদন দেয়ার পর নিশ্চয় ডিজি মহোদয় ব্যবস্থা নিবেন। জানা যায়, দেশের সব পর্যায়ে ডিজিটাল পদ্ধতি চালু করার অংশ হিসেবে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কর্মরত শিক্ষকদের বেতনও ডিজিটাল পদ্ধতি করতে ইলেক্টনিক ফান্ড ট্রান্সফার (ইএফটি) চালু করার নির্দেশ দেয় সরকার। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশকিছু শিক্ষক এ বিষয়েগণমাধ্যম কর্মীদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ইএফটি পূরন বাবদ প্রত্যক শিক্ষকের কাছ থেকে ২০০টাকা করে উৎকোচ নেন। কোন শিক্ষক দিতে অস্বীকার করলে ওই শিক্ষকের ইএফটি পূরন বন্ধ করে দেন। ফলে উপজেলার সকল শিক্ষকেই বাধ্য হয়ে ঘুষ দিয়ে ইএফটি পূরন করেন। তবে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) সালমা আক্তার ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ব্যক্তিগত আক্রোশে কতিপয় শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা ভূয়া অভিযোগ করছেন। ইএফটি ও বিদ্যালয়ের নাম সংশোধনের জন্য শিক্ষকরা শুধুমাত্র কম্পিউটারের জন্য কালি ও কাগজ কিনে দিয়েছেন। এদিকে ২০২০ সালে গফরগাঁওয়ে ২৩৯টি বিদ্যালয়ে স্লিপ প্রকল্পের আওতায় ৫০ ও ৭০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। একাধিক প্রধান শিক্ষক বলেন, বরাদ্দ পাওয়া সকল বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের নিকট থেকে ১২ শতাংশ হারে টাকা আদায় করে ৯.৫০ শতাংশ হারে জমা দিয়ে বাকি তিন লক্ষাধিক টাকা আত্মসাত করেন শিক্ষা কর্মকর্তা। উপজেলার ২৩৯টি বিদ্যালয়ের ২০২০ সালে বিজয় ফুল ও ইন্টারনেক বরাদ্দের ৩১৫০ টাকা থেকে প্রধান শিক্ষকদের ২০০০ টাকা করে নিতে বাধ্য করেন। এখান থেকেও তিনি দুই লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।২০১৯-২০ অর্থবছরের আন্তঃপ্রাথমিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার বরাদ্দের পুরো টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে এ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। তাছাড়াও প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে আসা বরাদ্দ ভয়-ভীতি দেখিয়ে ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত ঘুষ আদায় করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে বেশ কয়েকজন প্রধান শিক্ষক বলেন, ঘুষ না দিলে তিনি চেক দেন না। এ নিয়ে কথা বললে পরবর্তী সময়ে শিক্ষকদের নানাভাবে হয়রানি করেন শিক্ষা কর্মকর্তা । এদিকে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শফিউল হক বলেন, তদন্ত চলছে, অনিয়মের অভিযোগ প্রমানিত হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দয়াকরে নিউজটি শেয়ার করুন

আরো পড়ুন.....

greenaronno.com

themes052459
© All rights reserved © 2018 মুক্তকণ্ঠ
Theme Download From Bangla Webs